Breaking News

ইস্টবেঙ্গলকে আই লিগ দেব বলেই থাকলাম | আজকাল


মাহমুদ আল আমনার কথা শুনলেন সৌমিত্র কুমার রায়:  মরশুমের শুরুতে বলেছিলেন, ট্রফির খিদে নিয়ে ইস্টবেঙ্গলে যাচ্ছি। মরশুম শেষে নিশ্চয় অতৃপ্ত?
আমনা: হ্যাঁ, তা ঠিক। ট্রফির খিদে নিয়েই এসেছিলাম। মরশুমের প্রথম ট্রফি কলকাতা লিগ পেয়েছিলাম ঠিকই। কিন্তু, সমর্থকদের আই লিগ দিতে পারিনি। মনে করি, সমর্থকরা আই লিগ পাওয়ার আশায় ছিলেন। টিমের সকলেই সেরাটা দিয়েছে। আই লিগে লাজং ম্যাচটা জিততে পারলেই ছবি অন্যরকম হত। আর সুপার কাপে বেঙ্গালুরুকে হারানো কঠিন, তা আগেই বলেছিলাম। সুপার কাপে আমরা রানার্স হলেও আমি খুশি নই। চ্যাম্পিয়নকেই সবাই মনে রাখে, দু’নম্বর হওয়ার মূল্য নেই। কেউ মনে রাখে না।
 আই লিগ ও সুপার কাপ না পাওয়ার ক্ষেত্রে কী ভুল হয়েছিল?
আমনা: তাহলে প্রথমেই বলতে হয়, আমরা অনেক সহজ গোলের সুযোগ নষ্ট করেছি। গোলের সুযোগ এত মিস করলে চ্যাম্পিয়ন হওয়া সম্ভব নয়। এমনও ম্যাচ গেছে, যে ম্যাচে আমরা অন্তত ২–০ অথবা ৩–০ গোলে জিতি, কিন্তু, সেই ম্যাচ ড্র হয়েছে। আই লিগে এমন গুরুত্বরপূর্ণ ম্যাচ হেরেছি, মরশুম শেষে যে–‌ভুলের জন্য মাশুল গুনতে হচ্ছে। 
 টিমের ড্রেসিংরুমের পরিবেশ?
আমনা: ড্রেসিংরুমের পরিবেশ ঠিকঠাক ছিল। আমরা মরশুমের শেষ ম্যাচ পর্যন্ত কঁাধে কঁাধ মিলিয়ে লড়াই করেছি। মনে করি, ট্রফি জেতার জন্য যে লাক দরকার হয়, সেটা আমাদের সঙ্গে ছিল না। 
 একটা মরশুম কলকাতায় কাটিয়ে ফেললেন। অভিজ্ঞতা? ইস্টবেঙ্গল সমর্থক?
আমনা: দারুণ অভিজ্ঞতা। কলকাতা শহরটা খুব পছন্দ হয়েছে আমার। বেশ কয়েকটা জায়গায় পরিবার নিয়ে ঘুরতেও গেছি। ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের কোনও তুলনাই হয় না। মাঠে খেলার সময় ওরা যেভাবে চিয়ার–আপ করে, এক কথায় অসাধারণ। বিশেষ করে ওরা আমাকে যে ভালবাসা ও সম্মানটা দেয়, তার জন্য কিছু ফিরিয়ে দিতে পারলে আরও ভাল লাগে।
 অন্যান্য ক্লাবের প্রস্তাব পেলেও ইস্টবেঙ্গলে থেকে যাওয়ার কারণ?
আমনা: হ্যাঁ, অন্য ক্লাবের অফার িছল।  ইস্টবেঙ্গলে সই করার কারণ, টাকাই সবসময় সবকিছু নয়। কলকাতায় এসেছিলাম, ইস্টবেঙ্গলকে ট্রফি দিতে। কিন্তু, সেই লক্ষ্যে পৌঁছতে ব্যর্থ হয়েছি। ১৫ বছর ইস্টবেঙ্গল আই লিগ পায়নি। সামনের মরশুমে সবাই একসঙ্গে লড়াই করে ইস্টবেঙ্গলকে আই লিগ জেতাতে হবে। ইস্টবেঙ্গলে আই লিগ দিতে হবে বলেই, অন্য ক্লাবের প্রস্তাব পেয়েও যাইনি। এটা ছাড়াও আর একটা কথা বলতেই হয়, ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের কাছ থেকে যে ভালবাসাটা পেয়েছি, অন্য ক্লাবে তা পাওয়া মুশকিল।
 গত এক বছরে ইস্টবেঙ্গলে আপনার সবচেয়ে ভাল এবং মন্দ মুহূর্ত কোনটা?
আমনা: ভাল মুহূর্ত আলাদাভাবে বলা যাবে না। ইস্টবেঙ্গল জার্সিতে যখনই কোনও ম্যাচ জিতেছি, সমর্থকদের আনন্দ দেখে আপ্লুত হয়েছিলাম। এবং দুটো ডাার্বিতে হারটা আমার কাছে গত সিজনের খারাপ স্মৃতি। ডার্বিতে আমার চোটটায় লেগে গিয়ে টিমের অনেক ক্ষতি হয়ে গিয়েছিল। সেদিন ড্রেসিংরুমে ফিরে খুব ভেঙে পড়েছিলাম। প্রচণ্ড মন খারাপ হয়েছিল। সামনের মরশুমে আমাদের কাছে ডার্বিটা খুব গুরুত্বপূর্ণ।
 খালিদ জামিল জমানা শেষ ইস্টবেঙ্গলে। আপনার খুব প্রিয় কোচ। নিশ্চয়ই মনখারাপ?‌
আমনা: ইতিমধ্যেই ফেসবুকে খালিদ সম্বন্ধে লিখেছি। আমরা দু’জনে ভাল সময় যেমন কাটিয়েছি, তেমনই কঠিন সময় পার করেছি। ওঁর থেকে অনেক কিছু শিখেছি। ফুটবল এরকমই। আজ এখানে আছ, তো, কাল অন্য জায়গায়। মেনে নিতেই হবে। ওঁর জন্য রইল আগামী দিনের অনেক শুভেচ্ছা। ব্যক্তিগত ও পেশাদার জীবনে সাফল্য প্রার্থনা করি।
 বিদায় খালিদ। থাকছেন সুভাষ ভৌমিক। সুভাষ প্রসঙ্গে আপনার প্রতিক্রিয়া?
আমনা: আই লিগকে বিশ্বকাপের সঙ্গে তুলনা করেই উনি বুঝিয়ে দিয়েছেন, চ্যালেঞ্জ কতটা কঠিন। উনি যথেষ্ট অভিজ্ঞ। শেষ মরশুমে সুপার কাপে দলের সঙ্গেই ছিলেন। দেখা যাক কী হয়। ‌‌
ফেসবুক ক্রমাগত আমাদের গ্রুপ শেয়ারিং ব্লক করে চলেছে, সুতরাং, খেলাধুলা সম্পর্কিত সমস্ত খবর সবার আগে পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইকের মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ রাখুন, পোস্টটি পছন্দ হলে শেয়ার করতে অবশ্যই ভুলবেন না কিন্তু, লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজে
[pullquote align="normal"]
loading...
loading...
[/pullquote]

No comments