Breaking News

আজ কটক পৌঁছাচ্ছে মোহন বাগান নিজেদের ফেবারিট মানতে রাজি নন সঞ্জয় সেন । বর্তমান



নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শুক্রবার সকালের ফ্লাইটে কটক উড়ে যাচ্ছে মোহন বাগান। রবিবার বরাবাটি স্টেডিয়ামে ফেডারেশন কাপ ফাইনালে সবুজ-মেরুন ব্রিগেডের প্রতিদ্বন্দ্বী বেঙ্গালুরু এফসি। চলতি মরশুমে এখনও পর্যন্ত পাঁচবার এই দুই দল মুখোমুখি হয়েছে। সেই পরিসংখ্যান অনুযায়ী এগিয়ে রয়েছে সঞ্জয় সেনের দলই। কারণ, পাঁচটির মধ্যে মোহন বাগান জিতেছে দু’টিতে। বেঙ্গালুরু এফসি’র শেষ হাসি একটিতে। অপর দু’টি ম্যাচ ড্র হয়েছে। তবে ‘হিসাবের খাতা’র দিকে তাকাতে রাজি নন সবুজ-মেরুন কোচ সঞ্জয় সেন। তাঁর একটাই লক্ষ্য, ফেডারেশন কাপ জিতে মরশুম শেষ করা। 

বুধবার রবীন্দ্র সরোবর স্টেডিয়ামে এএফসি কাপের ম্যাচে বিদেশিহীন বেঙ্গালুরু এফসি’কে ৩-১ গোলে হারিয়েছে মোহন বাগান। স্বাভাবিকভাবেই আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে এডুয়ার্ডো-বলবন্ত-জেজেরা। বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজেদের মাঠে হালকা অনুশীলন করেন সনি-ডাফিরা। মূলত ফিটনেস ট্রেনিংয়ের উপরেই জোর দেওয়া হয়। চলতি মরশুমে ফুটবলারদের ফিট রাখার অন্যতম কারিগর গার্সিয়া এদিনও আনাস-কাটসুমিদের জন্য যথেষ্ট সময় ব্যয় করেন। 
অনুশীলনে ফিটনেস ছাড়াও সেট পিস ও সিচুয়েশন মুভমেন্ট ঝালিয়ে নেওয়া হল। ছিল পেনাল্টি শ্যুট আউট প্র্যাকটিস। রবিবারের ম্যাচ টাই-ব্রেকারে গড়ালে যাতে সমস্যায় না পড়েন কাটসুমিরা। এদিনও সবুজ-মেরুন ফুটবলারদের বডি ল্যাঙ্গুয়েজ ছিল অত্যন্ত ইতিবাচক। অনুশীলন সেরে ড্রেসিং-রুমে ফেরার পথে উৎসাহী সমর্থকরা সেলফি তোলেন সনি-ডাফিদের সঙ্গে। জানান শুভেচ্ছাও। 
ফাইনালের আগে নাকি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলা বারণ দেবজিৎ-প্রীতমদের। সবাই মনঃসংযোগ করছেন ফাইনালের জন্যই। কোচ সঞ্জয় সেনও আশাবাদী। কিন্তু মুখে বললেন, ‘বুধবারের ম্যাচ এখন অতীত। কী হয়েছে তা মনেও নেই। কটক পৌঁছে ফাইনাল নিয়ে ভাবব। বেঙ্গালুরু এফসি দেশের অন্যতম শক্তিশালী দল। কঠিন চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে ওরা তৈরি থাকবে।’
সুনীল ছেত্রীর অনুপস্থিতি কি মোহন বাগানকে বাড়তি সুবিধা এনে দেবে? সঞ্জয়ের ঝাঁঝালো উত্তর, ‘আমি মনে করি না। সুনীল ছেত্রী থাকাকালীন আমরা ওদের চার গোল দিয়েছি। কান্তিরাভাতেও সুনীল ছিল। সেই ম্যাচেও দু’গোল দিয়েছি আমরা। তাই কে খেলল আর কে খেলল না তা নিয়ে ভাবছি না। বেঙ্গালুরু দলে ভারসাম্যের অভাব নেই। একই পজিশনে একাধিক দক্ষ ফুটবলার রয়েছে। তাই আমাদের ছেলেদেরও মানসিক ও শারীরিকভাবে তৈরি থাকতে হবে।’ অনেকেরই ধারণা, সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের বিচারে ফাইনালে মোহন বাগানই ফেবারিট। তবে তা মানতে নারাজ মোহন কোচ। তাঁর বিশ্লেষণ, ‘আই লিগেও আমরা ছন্দে ছিলাম। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন হতে পারিনি। চায়ের কাপ এবং ঠোঁটের দূরত্ব শেষ পর্যন্ত রয়েই গিয়েছে। তাই ফেড কাপ ফাইনালেও নিজেদের ফেবারিট আখ্যা দিতে পারছি না। এখনও আমাদের পর্যাপ্ত উন্নতি করার অবকাশ রয়েছে। বুধবার জেজে একাধিক সুযোগ নষ্ট করেছে, শিলটন বাজে গোল খেয়েছে। তাই নিজেদের পারফরম্যান্সে উন্নতি ঘটানোই ফুটবলারদের লক্ষ্য হওয়া উচিত।’ আর যদি এবার ফেডারেশন কাপ গঙ্গাপারের ক্লাবে না আসে তাহলে? সঞ্জয় সেন এবারও ফ্রন্টফুটে। ‘কী হবে? সামনের বারের দিকে তাকিয়ে থাকব। আকাশ তো ভেঙে পড়বে না। খরাও হবে না।’ ফেডারেশন কাপ ফাইনালের আগে এদিন সনি-ডাফিদের উদ্বুদ্ধ করতে মাঠে এসেছিলেন মোহন বাগান সভাপতি। বৃহস্পতিবার ফুটবলারদের এক মাসের বেতনও দেওয়া হয়।
ফেসবুক ক্রমাগত আমাদের গ্রুপ শেয়ারিং ব্লক করে চলেছে, সুতরাং, খেলাধুলা সম্পর্কিত সমস্ত খবর সবার আগে পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইকের মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ রাখুন, পোস্টটি পছন্দ হলে শেয়ার করতে অবশ্যই ভুলবেন না কিন্তু, লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজে
[pullquote align="normal"]
loading...
loading...
[/pullquote]

No comments