Breaking News

ভবানীপুর নিস্পৃহ, টালিগঞ্জের অফার সুব্রতকে | বর্তমান


নিজস্ব প্রতিনিধি,কলকাতা: গত ১৩ এপ্রিল ভবানীপুর ক্লাবে গিয়ে দল গঠন নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা করেছিলেন সুব্রত ভট্টাচার্য। গত ১৫ এপ্রিল বাংলা নববর্ষে ভবানীপুর ক্লাবে তিনিই ছিলেন মধ্যমণি। ভবানীপুরের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে তিনি মোহন বাগান ক্লাবে যান। তবে মোহন বাগান সচিবও সুব্রত ভট্টাচার্যকে ফোন করেছিলেন ওই দিন তাঁবুতে আসার জন্য। সবুজ মেরুনে নির্বাচনের আবহ। শেষ পর্যন্ত অপ্রত্যাশিতভাবে মোহন বাগানে সভাপতি ও সচিব গোষ্ঠীর মধ্যে নির্বাচন হলে সুব্রত ভট্টাচার্য এখনও ফ্যাক্টর হতে পারেন। তবে ২০১৫ সালে সত্যজিৎ চ্যাটার্জির কাছে হারের পর আগের সেই জনপ্রিয়তা সুব্রতর নেই। ২০১২ সালের পর বড় ক্লাবের বৃত্তে কোচ হিসাবেও তাঁকে দেখা যায়নি।


গত ১২ মার্চ কলকাতা ক্রীড়া সাংবাদিক ক্লাবে প্রেস কনফারেন্স করে ইস্তফা দেন মোহন বাগান সহ সচিব ও অর্থ সচিব। সেদিন চুনী গোস্বামীর মতোই সুব্রত ভট্টাচার্য সচিবের ইস্তফা চেয়ে তরুণ প্রজন্মের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। গত বছর ভবানীপুরের কোচ হওয়ার পর থেকেই বসু পরিবারের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ভালো। নববর্ষেও দেখা গিয়েছিল সেই চিত্র। কিন্তু ভবানীপুরের ফুটবল টিমের দৈনন্দিন কাজকর্ম যাঁরা করেন তারা সুব্রতকে পছন্দ করতেন না। ফুটবলারদের অহেতুক বকাবকি করেন বলে অনেকের অভিযোগ। সেইজন্যই ভবানীপুর তাঁকে গত দুই সপ্তাহে ভাউচার পাঠিয়ে অগ্রিম দেয়নি। এরই মধ্যে মন্টু ঘোষের মৃত্যুর পর টালিগঞ্জ অগ্রগামীর তরুণ কর্তারা সুব্রত ভট্টাচার্যর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। গত বুধবার প্রাথমিক কথাবার্তা হয়েছিল। সুব্রত সময় চান। ভবানীপুর আগ্রহ না দেখানোয় সুব্রত ভট্টাচার্য আজ টালিগঞ্জ অগ্রগামীর কর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে পারেন। টালিগঞ্জ সচিব শুভঙ্কর ঘোষদস্তিদার নিজে কথা বলেছেন সুব্রত ভট্টাচার্যর সঙ্গে। 

সুব্রত টালিগঞ্জ অগ্রগামীর কোচিংয়ের দায়িত্ব নিতে আরও বেশি আগ্রহী, কারণ মুর অ্যাভেনিউয়ের দলটি প্রিমিয়ার ‘এ’- তে খেলে। আর ভবানীপুর খেলে প্রিমিয়ার ‘বি’-তে। টালিগঞ্জের কোচ হিসাবে তিনি তিন প্রধানের সঙ্গে টক্কর দেওয়ার সুযোগ পাবেন। মিডিয়ায় মাইলেজও পাবেন। প্রিমিয়ার ‘এ’-তে টালিগঞ্জের পাঁচ- ছয়টি ম্যাচ এবার সরাসরি সম্প্রচার হবে। সুভাষ ইস্ট বেঙ্গলে ফেরায় সুব্রত ভট্টাচার্যের ইচ্ছা ছিল মোহন বাগানে ফেরার। তিনি ভেবেছিলেন ২০১১ সালের মতো নির্বাচনের সময়ে তাঁকে ‘তুলো বাক্সে’ রেখে দিতে বাগানের বিবাদমান দুই গোষ্ঠী সবুজ মেরুনের মঞ্চ দেবেন। কিন্তু গত ৪ জানুয়ারি একক দায়িত্ব নেওয়ার পর শঙ্করলাল চক্রবর্তী ভালো কোচিং করানোয় খুব নাটকীয় কিছু না হলে সেই পথে হাঁটছেন না কর্তারা।


ফলে সুব্রত হয়তো টালিগঞ্জেই যাচ্ছেন। আলফ্রেডের মতো আই লিগে খেলা পরিচিত ফুটবলারদের চার মাসের চুক্তিতে সই করাচ্ছে টালিগঞ্জ। গত বছর ৫০ লাখ দিয়েছিল সরকার। সেই অর্থের অনেকটাই আছে টালিগঞ্জের কাছে। ক্রীড়ামন্ত্রী পরোক্ষে যুক্ত আছেন এলাকার এই ক্লাবের সঙ্গে। যদিও তাঁর পরিবারের অন্য কেউ আর টালিগঞ্জের সঙ্গে যুক্ত নন। সুব্রত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন রবিবার।
ফেসবুক ক্রমাগত আমাদের গ্রুপ শেয়ারিং ব্লক করে চলেছে, সুতরাং, খেলাধুলা সম্পর্কিত সমস্ত খবর সবার আগে পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইকের মাধ্যমে আমাদের সাথে যোগাযোগ রাখুন, পোস্টটি পছন্দ হলে শেয়ার করতে অবশ্যই ভুলবেন না কিন্তু, লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজে
[pullquote align="normal"]
loading...
loading...
[/pullquote]

No comments